মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০১৯ | | ১৪ শাওয়াল ১৪৪০
banner

মুন্সীগঞ্জে মালিপাথরে খাল খননে নানা অনিয়মের অভিযোগ ॥ ব্যবস্থা নিলেন ইউএনও

প্রকাশ : ০৯ জানুয়ারী ২০১৯, ১২:১২ এএম

মুন্সীগঞ্জে মালিপাথরে খাল খননে নানা অনিয়মের অভিযোগ  ॥ ব্যবস্থা নিলেন ইউএনও

নিজেস্ব প্রতিবেদক ॥ 

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের মালিরপাথর, কুটিবাড়ী ও পালপাড়া এলাকায় সরকারী খাল পূর্ন: খনন প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলা পরিষদ সুত্রে জানাগেছে, অতিদরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচীর আওতায় মালিরপাথর খালটি ধলেশ্বরী নদীর পাড় হতে শুরু হয়ে বিসিক মাঠ পর্যন্ত পূন: খননের উদ্যোগ নেয় কতৃপক্ষ। প্রকল্পটিতে ১২৬ জন শ্রমিক ৪০ দিনে এই খনন কাজে নিয়োজিত থাকার কথা থাকলেও সেখানে ভ্যাকু দিয়েই খালটির খনন কাজ করা হয়। এছাড়াও খালের পাশবর্তী স্থানীয় বাসিন্দাদের বসতি স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলার ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায় করার চেষ্টা চালাচ্ছে একটি সংঘবন্ধ চক্র। এদিকে বিষয়টি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফারুক আহমেদকে অবহিত করলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিয়ে ভ্যাকু দিয়ে মাটি খননের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত হওয়ার পর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা খাল খননের স্থানে পরির্দশন করে এসেছে। ভ্যাকু দিয়ে খাল খননের কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য বিষয়েও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে প্রতিবেদন তৈরিতে সরাজমিনে গিয়ে দেখাযায়, ধলেশ্বরী নদীর পাড় থেকে শুরু করে পালপাড়া পর্যন্ত ২টি ভ্যাকু দিয়ে খনন কাজ চলছে। ইতিমধ্যে পালপাড়া পর্যন্ত খালটি পূন: খনন করা হয়েছে। এরমধ্যেই খাল পাড়ের জামাল , মান্নান, মোতালেব, মালম বেপারীর স্থাপনা সহ বারেক দেওয়ানের মাঠ, হাজী নূর ইসলামের মাঠ ও একাধিক স্থানে জোরপূর্বক স্থাপনা ভাঙ্গা হয়েছে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভুক্তভোগী জানান, পঞ্চসার ইউনিয়নে ৬ং ওয়ার্ড সদস্য ইমরান হোসেন জোর পূর্বক একাধিক স্থানে স্থানীয়দের বসতি ভেঙ্গে দিয়েছে। স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলার হুমকি দিয়ে অর্থ আদায়ের পায়তারা করছে। ভ্যাকু দিয়ে খালটি গভীরভাবে খনন করে সেই মাটিগুলো সরিয়ে রাখছে সে। স্থানীয়দের আশংকা মাটিগুলো ইমরান মেম্বার বিক্রি করে দিবে। এলাকবাসী  জানান ইমরানের বিরুদ্ধে অস্ত্র, মাদক, হত্যাসহ ডজন খানেক মামলা আদালতে বিচারাধীন । ভয়ে তাই কোন প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা স্থানীয়রা। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইমরান মেম্বার বলেন, সরকারীভাবে মেপে দিয়ে গেছে সেখানেই খনন হচ্ছে । কারো বসতি ভাঙ্গা হচ্ছেনা । কাউকে কোন ভয় দেখাইনি।  

প্রকল্প সূত্রে জানাগেছে, বিসিক মাঠ পর্যন্ত খননের উদ্যোগ নেয়া হলেও বাজেট স্বল্পতার কারনে অর্ধেক খাল খনন করেই শেষ হবে এই প্রকল্পের কাজ। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি এই প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।


সর্বশেষ সংবাদ