মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০১৯ | | ১৪ শাওয়াল ১৪৪০
banner

সিরাজদিখানে আওয়ামীলীগের পার্টি অফিসসহ ৫টি দোকানে হামলা ও ভাংচুর, আটক-১

প্রকাশ : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৪:১৮ পিএম

সিরাজদিখানে আওয়ামীলীগের পার্টি অফিসসহ ৫টি দোকানে হামলা ও ভাংচুর, আটক-১

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে আওয়মীলীগের পার্টি অফিসসহ ৫ টি দোকানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

৩০শে ডিসেম্বর রবিবার দুপুরে বাসাইল আওয়ামীলীগ পার্টি অফিস ও নির্বাচন পরিচালনা ক্যাম্প ভাঙ্গচুর এবং রাত ১০ টার দিকে ইমামগঞ্জ বাজারের ৫টি দোকানে হামলা কুপিয়ে সাটার, থাইগ্লাস, মালামাল ক্ষয়ক্ষতি করেছে সন্ত্রাসীরা।

এ ঘটনায় প্রধান আসামী হিসেবে পুলিশ আতাউর রহমান অপু (৩০) নামের এক সন্ত্রাসীকে রাতেই আটক করেছে। তার বিরুদ্ধে, ছিনতাই, ডাকাতি, ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের ১নং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লিটু জানান, গতকাল দুপুর ২টার দিকে উপজেলার ইমামগঞ্জ বাজারে বাসাইল ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ পার্টি অফিসে এ হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

তিনি আরো বলেন, আমরা সকলে ভোটকেন্দ্রে ছিলাম তখন পার্টি অফিস বন্ধ ছিল সে সময় অফিসে কোন লোক ছিলনা। এ সময় শাহ মোয়াজ্জেমের পালিত সন্ত্রাসী চানমিয়ার পুত্র জহিরুলের নেত্রীত্বে আতাউর রহমান অপু, আল-আমিনসহ একদল বিএনপির সশস্ত্র সন্ত্রাসী এ হামলা চালায়।

খবর পেয়ে আওমীলীগ নেতা কর্মীরা ঘটনা স্থলে আসলে সন্ত্রাসীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে ৩টার দিকে প্রায় ২ শতাধিক নেতাকর্মী প্রতিবাদ সমাবেশ করে।

এই ঘটনায় অপুকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়। বাকিরা পালিয়েছে। রাত ১০ টারদিকে তারা আবার বাজারে ৫টি দোকানের সাটার. থাই গ্লাস ভাঙ্গচুর করে।  

এবিষয়ে বাসাইল ইউপি ৭ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ আইয়ুব খান জানান, অপু অস্ত্রবাজ সন্ত্রাসী, ধর্ষক, ছিনতাই ও ডাকাতীতে জড়িত। সে ২০০৬ সালে আমার বুকে ২ টি পিস্তল ঠেকিয়ে নিয়ে মারধর করেছিল।

সে সময় লিটু প্রতিবাদ করায় তাকে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছিল। বাসাইল ভুই গ্রামের অপুর পাশের বাড়ির জনৈক ব্যাক্তির পুত্রবধূকে তার ছেলের সামনে উঠিয়ে নিয়ে সারারাত অপুসহ ৪/৫ জনে ধর্ষণ করে। বিষয়টি এলাকায় সকলে জানে। ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারে না।

বাসাইল ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম যুবরাজ জানান, বাসাইল ভুই গ্রামের মৃত রেজ্জাক মিয়ার এই ছেলে, সন্ত্রাসী, ধর্ষক, মাদকাসক্ত, অস্ত্রবাজ, ছিনতাই ডাকাতির হোতা। গ্রামের কমপক্ষে ২০টি পরিবার ওর ভয়ে গ্রামছাড়া, তারা ভাড়ায় অন্য এলাকায় চলে গেছে।

সিরাজদিখান থানা ওসি (প্রশাসন) মোঃ ফরিদ উদ্দিন জানান, অপুকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক ও ডাকাতির অভিযোগ আছে। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। 


সর্বশেষ সংবাদ