মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ | | ২ রবিউস সানি ১৪৪০
banner

একজন ইয়াছমিন ম্যাডাম!

প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১১:১২ এএম

একজন ইয়াছমিন ম্যাডাম!

ছোটবেলায় পাঠ্যপ্রস্তুকে রচনাতে আমরা পড়ে থাকি যে একজন আদর্শ শিক্ষকের আসলে কী কী বৈশিষ্ট্য থাকা দরকার। কিংবা কোন গুণাবলী গুলো তাকে গড়ে তুলবে একজন আদর্শ শিক্ষক হিসাবে। অনেকেই শিক্ষকতা পেশার সাথে জড়িত তবে একজন আদর্শ শিক্ষক হতে সবাই পারেন না এটাই আমরা দেখছি বার বার! অথচ একজন আদর্শ শিক্ষকই জাতি গড়ার কারিগর। তাই সেই শিক্ষককে হতে হবে আর দশটি মানুষের তুলনায় অনন্য। কেননা তাকে দেখেই শিখবে আগামী প্রজন্ম। আসুন জেনে নিই একজন আদর্শ শিক্ষকের সঠিক বৈশিষ্ট্যগুলো।

সবসময় প্রস্তুত থাকেন :

একজন আদর্শ শিক্ষক নিজেকে সবসময় প্রস্তুত রাখেন। ছাত্রছাত্রীদের যেকোনো সমস্যার সমাধানে যেন তিনি এগিয়ে আসতে পারেন সে বিষয়ে সতর্ক থাকেন এবং তাদের সার্বিক প্রয়োজনে সাহায্য করে থাকেন।

সবসময় পড়াশোনার মধ্যে থাকেন। 

পড়াশোনা ছাড়া একজন আদর্শ শিক্ষকের জীবনে আর কিছুই করার থাকে না। নিজেকে সবসময় ব্যস্ত রাখেন পড়াশোনা করে। তার আরও অনেক বেশি জানার আগ্রহ থাকে যেন তিনি তার জ্ঞানটুকু ছাত্রদের মাঝে বিলিয়ে দিতে পারেন। তারা পড়তে অনেক বেশি ভালোবাসেন। সব ধরনের পরিবেশের সাথে নিজেকে মানিয়ে নেন :

এমন অনেক মানুষ আছে যারা যেকোনো পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারেন না। ফলে অনেক ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হন। কিন্তু একজন আদর্শ শিক্ষক নিজেকে এমনভাবে প্রস্তুত করে ফেলেন যেন যেকোনো ধরনের পরিস্থিতিতে নিজেকে খুব সহজে মানিয়ে নিতে পারেন এবং যেকোনো ধরনের পরিবর্তনে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেন। 

শিক্ষার্থীদের সত্যের পথে চালিত করেন :

একজন আদর্শ শিক্ষক তার ছাত্রছাত্রীদের সবসময় সত্যের পথে চালিত করে থাকেন। কেননা তার কাছে অন্যায়ের কোনো আশ্রয় নেই। তিনি ছেলেমেয়েদের সবসময় ন্যায়ের সাথে চলতে পরামর্শ দেন এবং সত্যের আদর্শে নিজেদের গড়ে তুলতে নির্দেশ দেন। শিক্ষার্থীদের উৎসাহ দিয় থাকেন 

একজন আদর্শ শিক্ষক ছাত্রছাত্রীদের একটি নির্দিষ্ট উপায়ে পড়িয়ে থাকেন এবং সবসময় উৎসাহ দিয়ে থাকেন। তিনি ভালো করে জানেন যে উৎসাহ ছাড়া একজন শিক্ষার্থী ভালোভাবে এগোতে পারে না। এ কারণে ছাত্রছাত্রীদের কল্যাণে তিনি তাদের উৎসাহ দিয়ে থাকেন সঠিকভাবে এগিয়ে যেতে।

ছাত্রছাত্রীদের সাথে আত্মার বন্ধন তৈরি করেন :

একজন আদর্শ শিক্ষক ছাত্রছাত্রীদের সাথে এক ধরনের আত্মার বন্ধন তৈরি করে ফেলেন। যার ফলে ছাত্রছাত্রীরা যেকোনো সমস্যায় শিক্ষকের কাছে চলে যান এবং তিনি তা খুব সহজ উপায়ে সমাধান করে দেন।    আনন্দের সাথে পড়িয়ে থাকেন 

একজন আদর্শ শিক্ষক ভালোভাবেই জানেন কোন উপায়ে ছাত্রছাত্রীদের পড়ালে তারা বিষয়টিকে খুব সহজই গ্রহণ করতে পারবে এবং কোনো ধরনের বিরক্ত লাগবে না। তাই তিনি পড়ানোর মাধ্যমটিকে আনন্দময় করে তোলেন। এতে করে ছাত্রছাত্রীরা অনেক বেশি আগ্রহী হয়ে ওঠে এবং পড়ায় মনোযোগী হয়। প্রিয় পাঠক এতক্ষণ ধরে এত কিছু বলার মাঝে নিশ্চয় কোন কারন আপনাদের জানানো জন্য প্রস্তুতি মাত্র! আজকে আমার দেখা এমন একজন শিক্ষিকার কথা বলব যার মাঝে পরিপূর্ণ শিক্ষগ্রহণ করতে পারি প্রতিমূহুর্তে তিনি হচ্ছেন তিনি ছিলেন সদর উপজেলার পূর্ব খরুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালায়ের প্রধান শিক্ষিকা।

যতদিন ছিল শুধু স্কুল শিক্ষার্থীদের মাঝে আন্তরিকতার সিমাবদ্ধ ছিলেন না,ছিলেন এলাকার সকল বয়সের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের হৃদয়ের মাঝে। কারন তার প্রতিটি কর্মকান্ডই ছিল সমাজ পরিবর্তন ও সমাজের অবহেলিত মানুষের স্বপ্ন দেখানো!

এতক্ষণ যার কথা বলছি তিনি হলেন,শাহানাজ ইয়াছমিন সকলের প্রিয় ইয়াছমিন ম্যাডাম!

তাঁর মাঝে সবটুকু দেখেছি, একজন প্রধান শিক্ষিকা হিসাবে, সহজে ছাত্র ছাত্রীদের মনজয় করা,পাঠদানে কৌশলতা, সকল শিক্ষকে উপস্থিতি প্রাণবন্দন, পাঠদানে সরব রাখা ও অভিবাবকদের সাথে সমন্ময় রেখে  প্রতিমাসে ঝড়েপড়া ছাত্র ছাত্রীদের মেধাবিকাশ গড়ে তোলা সহ, ব্যাতিক্রম কার্যক্রম। খেলাধোলাসহ জাতীয় পর্যায়ে সকল দিবস পালন ছিন শাহনাজ ইয়াছমিনের একটি অন্যাঅন্য দৃষ্টান্ত। তিনি যেখানে গেছেন শুধু সুনামের সহিত দায়িত্ববহন নয়, করেছেন স্থানীয় সকলের মন জয়। সদরের পূর্ব খরুলিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সদ্য বিদায় প্রধান শিক্ষিকা এখন জেলার শ্রেষ্ট শিক্ষিকা ও সবার আইডল থাকনে অনুকরনিয় হয়ে। তিনি বিগত ২০০৪ সনে যোগদানের আগে এই বিদ্যালয়টি গ গ্রেট থেকে প্রথম গ্রেটে তার অধম্য পরিশ্রমে জেলার শ্রেষ্ট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হল। বলতে হয় সরকারি চাকরি মানে বদলী তবে কিছু বদলী বেদনা দায়ক! যেমনটি হল খরুলিয়া এলাকাজুড়ে। 

 আজ ইয়াছমিন ম্যাডামের বিদায়ে এলাকার সকল শ্রেণীর ক্ষতি হল,সবাই মনে করেন তারমতো একজন আদর্শ শিক্ষক পাওয়াটা কঠিন হয়ে পড়বে। তারপরেও বিদায় দিতে হয়, তবে এই বিদায় শেষ বিদায় নয়, আমাদের মাঝে আসবেন আপনার বিচক্ষণতা স্বরুপ আদর্শিক জায়গায় আমাদের মাঝে আলো প্রদীপ জ্বালাবেন সময় অসময়ে, সেই আশাটুকু রাখছি। 

লেখক জাহাঙ্গীর আলম শামস্,সমাজ সেবক ও সংবাদকর্মী

সর্বশেষ সংবাদ