১৫, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, রোববার

রাজধানীতে পাঠাও চালককে গলা কেটে হত্যা

রাজধানীতে অ্যাপসভিত্তিক রাইড শেয়ারিং পাঠাওয়ের এক চালককে গলাকেটে হত্যা করে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার ভোরে হৃদরোগ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে রোববার (২৫ আগস্ট) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে মালিবাগ ফ্লাইওভারের তৃতীয় তলায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম মিলন (৩৫)। দুই সন্তানের জনক মিলন পরিবারের সঙ্গে মিরপুর-১ গুদারাঘাট এলাকায় থাকতেন। ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার দুপুরে শাহাজানপুর থানার (এসআই) আতিকুর রহমান বলেন, উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তার গলায় সাতটি সেলাই দেয়। পরে চিকিৎসকদের নির্দেশে মিলনকে হৃদরোগ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোর ৬টার দিকে মারা যান মিলন।

তিনি আরও বলেন, রোববার রাত ২টা ১২ মিনিটের দিকে মিলনের সঙ্গে তার এক বন্ধুর মুঠোফোনে কথা হয় এবং মিলন তাকে জানায়, সে মালিবাগ সিআইডি অফিসের সামনে প্যাসেঞ্জার নিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, রাতে রাস্তাঘাট ফাঁকা থাকায় নিরাপত্তা বিষয়ে ঝুঁকি থাকে ফ্লাইওভারে। এরপরও যাত্রী নিয়ে মিলন ফ্লাইওভারের তৃতীয় তলায় উঠায় এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটতে পারে। সববিষয়ে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জানা গেছে, উড়ালসড়কে ওঠার পরপরই মিলনের গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়। এই আঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে তার। রক্তের বেগ থামাতে মিলন নিজেই তার গলার ডান পাশের অংশ ডান হাত দিয়ে চেপে ধরেন। ওই অবস্থায় দৌড়ে উড়ালসড়ক দিয়ে নেমে আসেন। মর্মান্তিক এই দৃশ্য দেখে দুজন পথচারী মিলনকে উদ্ধার করে নিয়ে শান্তিনগর মোড়ে টহল পুলিশের কাছে। ততক্ষণে মিলনের কথা বলা বন্ধ হয়ে যায়।

পাঠাও অফিসে তথ্যের বরাতে এসআই আতিক বলেন, মিলনের লাস্ট কল ছিল ৭ আগস্ট। হয় এর মাঝে সে পাঠাও চালায়নি অথবা চালিয়ে থাকলেও অ্যাপস ছাড়াই যাত্রী পরিবহন করেছে। ঘটনার পর ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটিও উধাও। ধারণা করা হচ্ছে, যাত্রীবেশ ছিনতাইকারী তাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়েছে।

মতামত