১৬, অক্টোবর, ২০১৯, বুধবার

জি কে শামীমের মা আয়শা হকের নামে ১৪০ কোটি টাকার এফডিআর!

শুক্রবার রাজধানীর নিকেতন এলাকার অফিস থেকে জি.কে.বি. কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেডের মালিক জি কে শামীমকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১।

গতকাল শনিবার মাদক নিয়ন্ত্রণ ও অস্ত্র আইনের দুই মামলায় শামীমকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। শামীমের সাত দেহরক্ষীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

শুক্রবার নিকেতনে শামিমের অফিসে অভিযানের সময় র‌্যাব বিভিন্ন ব্যাংকে স্থায়ী আমানত (এফডিআর) হিসেবে রাখা ১৬৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার কাগজপত্র, নগদ এক কোটি ৮১ লাখ ২৮ হাজার টাকা, ৯ হাজার মার্কিন ডলার ও ৭৫২ সিঙ্গাপুরি ডলার পেয়েছে। এ ছাড়াও জব্দ করা হয় আটটি বৈধ অস্ত্র ও ২৩টি ব্যাংকের ৮৩ চেক। নামে-বেনামে যেসব ব্যাংকে শামীমের অর্থ রয়েছে সে ব্যাপারে তথ্য নিচ্ছেন গোয়েন্দারা। এরই মধ্যে ৮টি বাণিজ্যিক ব্যাংকে তার এফডিআর পাওয়া গেছে।

অভিযানে পাওয়া এফডিআর-এর মধ্যে জি কে শামীমের মা আয়শা হকের নামে ১৪০ কোটি টাকার এফডিআর রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এগুলো অবৈধ পথে উপার্জন করা শামীমেরই অর্থ। কারণ তার মা সাধারণ গৃহিণী। তার অন্য কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নেই।

র‌্যাব সূত্র জানায়, সাধারণ পরিবার থেকে উঠে আসা জি কে শামীম ক্ষমতাসীন দলের ভুয়া পরিচয় দিয়ে চলাফেরা করতেন। একসময় পরিচিত ছিলেন বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাসের ‘ডান হাত’ হিসেবে। ঢাকা মহানগর যুবদলের সহ-সম্পাদকও ছিলেন তিনি। তবে ক্ষমতার পালাবদলে শামীমও তার পরিচয় বদলে ফেলেন। রাতারাতি ভোল পাল্টে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগে ভিড়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

সবসময় তার পাহারায় থাকত নিজস্ব দেহরক্ষী। তাদের প্রত্যেকের হাতে থাকত শটগান। সেগুলো বৈধ হলেও অন্যদের হুমকি দিতে বা ভয় দেখাতে এসব অস্ত্র ব্যবহার করা হতো। প্রভাবশালী ঠিকাদার হিসেবে পরিচিত শামীমের প্রতিষ্ঠান সরকারের অন্তত ২২টি বড় প্রকল্পের কাজ করছে। ঠিকাদারি কাজের দুনিয়ায় তিনি ছিলেন অঘোষিত ‘টেন্ডার কিং’। অল্প সময়ে তার বিপুল অর্থের মালিক বনে যাওয়ার বিষয়টি বিস্ময়কর।

সংশ্নিষ্টরা জানান, উত্তরার আশকোনায় প্রায় ৪৫০ কোটি টাকায় র‌্যাব সদর দপ্তর, ১৩ কোটি টাকায় পোড়াবাড়ীতে র‌্যাব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ৫০০ কোটি টাকায় আগারগাঁওয়ে রাজস্ব ভবন, ১৫০ কোটি টাকায় আগারগাঁওয়ে পঙ্গু হাসপাতালের নতুন ভবন, ৫০ কোটি টাকায় এনজিও ভবন, ১৫০ কোটি টাকায় নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল, ১২ কোটি টাকায় পাবলিক সার্ভিস কমিশন, ৩০ কোটি টাকায় বিজ্ঞান জাদুঘর, ১৫০ কোটি টাকায় সচিবালয়ের সম্প্রসারিত ভবন, ১০ কোটি টাকায় বাসাবো বৌদ্ধ মন্দির, ১৫০ কোটি টাকায় হিলট্র্যাক্টস ভবন ও ১৫০ কোটি টাকায় মহাখালী শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে শামীমের প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়াও ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়, ল্যাবরেটরি মেডিসিন ভবন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ও কেবিনেট ভবন নির্মাণসহ বেশ কিছু প্রকল্প চলমান রয়েছে। এসব প্রকল্পের কাজ পেতে মোটা অঙ্কের কমিশন দিয়েছেন শামীম। রূপপুরের কাজে ১০ শতাংশ কমিশন দিয়েছেন।

মতামত